খেলা

সাকিবের নিষেধাজ্ঞায় আমরা মর্মাহত : বিসিবি সভাপতি


জুয়াড়ির কাছ থেকে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পেয়ে প্রত্যাখ্যান করলেও বিষয়টি গোপন করায় বিশ্বসেরা অল-রাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ করেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। আর এ ঘটনায় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনও বিবৃতি দিলেন। জানালেন তিনি এই খবরে কতটা মর্মাহত।

মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) রাতে মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে নাজমুল হাসান পাপন বলেন, সাকিব আল হাসানের নিষেধাজ্ঞায় আমিও ব্যথিত। এরচেয়ে বেশি ব্যথিত হওয়ার কিছু হতে পারে, তা আমার জানা নেই।

বিসিবি সভাপতি সাংবাদিকদের আরও বলেন, সাকিবের মতো খেলোয়াড় আমরা পাবো কিনা জানি না। সাকিব খেলতে না পারার মতো হতাশ আর কেউ হতে পারে না।

জুয়াড়িদের কাছ থেকে তিনবার ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পাওয়ার পরও তা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলকে (আইসিসি) না জানানোর অপরাধে সাকিবকে ২ বছর নিষিদ্ধ করে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রণ সংস্থা।

কিন্তু ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে ক্ষমা চাওয়া সাকিবের ওপর সন্তুষ্ট আইসিসি। নিষেধাজ্ঞা থাকা অবস্থায় আইসিসির বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নেয়ার শর্তে সাকিবের শাস্তি এক বছর স্থগিত করে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রণ সংস্থা।

সাকিব আল হাসান বলেন, আইসিসি ও অ্যান্টি করাপশন ইউনিট (এসিইউ) টিমের শিক্ষা কর্মসূচিতে সমর্থন দিতে তাদের সঙ্গে কাজ করার অপেক্ষায় রয়েছি। আমি যে ভুল করেছি, তরুণ খেলোয়াড় যাতে সেটা না করে, সেটাই নিশ্চিত করতে চাই।

নাজমুল হাসান জানালেন, তিনি সাকিবের পাশে আছেন এবং থাকবেন। তিনি বলেছেন, ‘(সাকিবের নিষেধাজ্ঞার খবরে) আমরা অবশ্যই শকড, এটা অত্যন্ত শকিং। শকড হওয়ার মতো এর চেয়ে বড় খবর আর নেই।’

এই সময়ে সাকিবের শূন্যতা পূরণ হওয়ার মতো নয় জানালেন বোর্ড প্রধান, ‘আমি অনেকবার বলেছি, দুজন খেলোয়াড়ের বিকল্প আমাদের নেই। একজন মাশরাফি, আরেকজন সাকিব। তাদের বিকল্প কাউকে পাবো কিনা জানি না। সে খেলতে পারছে না, এতেই আমরা শকড।’

ভারত সফরে সাকিবকে না পাওয়া একটা বড় ধাক্কা স্বীকার করলেন নাজমুল হাসান, ‘ভারতে প্রথম সিরিজ খেলতে যাচ্ছি আমরা, সব পরিকল্পনা সাকিবকে নিয়েই করা হয়েছিল।

তিনি যোগ করেছেন, এখন রাগ হচ্ছে যে কেন জানালো না (প্রস্তাব পাওয়া)। রাগটা এতক্ষণ প্রকাশ করিনি, তাকে সামনে পেয়ে বলেছি।

তবে সাকিবের ওপর খুশি তিনি, কারণটা ব্যাখ্যা করলেন বোর্ড প্রেসিডেন্ট, সবাইকে বলতে চাই, আমি খুশি যে সাকিব স্বীকার করেছে। অবশ্য খুশি হওয়ার সবচেয়ে বড় কারণ দুর্নীতি বিরোধী ইউনিটকে পুরোপুরি সহযোগিতা করেছে সে।

দুর্নীতি বিরোধী ইউনিট যে সাকিবকে ডেকেছে সেটাও জানতেন না তিনি, আমরা কিছুই জানি না। তারা (দুর্নীতি বিরোধী ইউনিট) একেবারে আলাদা। শুধু সাকিবের সঙ্গেই ওরা দেখা করেছে। আমরা শুধু রেজাল্ট জানতে পেরেছি। দুই তিন দিন আগে ধর্মঘটের পর সাকিবই প্রথম বললো।’

এই দুঃসময়ে সাকিবের পাশে থাকতে চান নাজমুল হাসান, আমি মনে করি, সবাইকে সাকিবের পাশে থাকা উচিত। ওর ভেঙে পড়ার কোনও কারণ নেই। সবসময় বিসিবি পাশে থাকবে।

সিনিউজ ডেস্ক

0 Comments

Please login to start comments