বাংলাদেশ

৫৫ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সবাই ফেল


 

সি নিউজ: এবার উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষার ১০ বোর্ডে গড় পাসের হার ৬৬ দশমিক ৬৪ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছেন ২৯ হাজার ২৬২ জন শিক্ষার্থী। এর পরীক্ষায় অংশ নেয়া ১৩ লাখ ১১ হাজার ৪৫৭ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ৮ লাখ ৫৮ হাজার ৮০১ জন। ফেল করেছে ৪ লাখ ২৯ হাজার ৯৫৬ জন।  এবার মোট ৮ হাজার ৯৪৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা দেয়। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৫৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কেউ পাস করেনি। তবে গেলো বছরের তুলনায় এ বছর ফেল করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ১৭টি কমেছে। ২০১৭ সালে ৭২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কেউ পাস করেনি। 

 

আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের মধ্যে ৩৫টি প্রতিষ্ঠানে কেউ পাস করেনি। এরমধ্যে ঢাকা বোর্ডে ৬, রাজশাহী বোর্ডে ৬, কুমিল্লায় ২, যশোরে ৪, চট্টগ্রামে একটি, বরিশালে ২, সিলেটে ২ ও দিনাজপুর বোর্ডে ১২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এছাড়া মাদরাসা বোর্ডের ১৩টি ও কারিগরি বোর্ডে ৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কোনো শিক্ষার্থী পাস করতে পারেনি। এরমধ্যে ঢাকা বোর্ডে ৬, রাজশাহী বোর্ডে ৬, কুমিল্লায় ২, যশোরে ৪, চট্টগ্রামে একটি, বরিশালে ২, সিলেটে ২ ও দিনাজপুর বোর্ডে ১২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।  এছাড়া মাদরাসা বোর্ডের ১৩টি ও কারিগরি বোর্ডে ৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কোনো শিক্ষার্থী পাস করতে পারেনি। চলতি বছর ২ এপ্রিল থেকে ১৩ মে এইচএসসি ও সমমানের লিখিত পরীক্ষা চলে। এরপর ১৪ থেকে ২৩ মে নেয়া হয় ব্যবহারিক পরীক্ষা। সারাদেশে দুই হাজার ৫৪১টি কেন্দ্রে এবার ১৩ লাখ ১১ হাজার ৪৫৭ জন শিক্ষার্থী উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় অংশ নেয়। যেভাবে পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করা যাবে টেলিটক মোবাইল ফোন থেকে আগামী ২০ থেকে ২৬ জুলাই পর্যন্ত এইচএসসি ও সমমানের ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করা যাবে বলে জানিয়ে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড। ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন করতে RSC লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে বিষয় কোড লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে। ফিরতি এসএমএসে ফি বাবদ কত টাকা কেটে নেয়া হবে তা জানিয়ে একটি পিন নম্বর (পার্সোনাল আইডেন্টিফিকেশন নম্বর-PIN) দেয়া হবে। আবেদনে রাজি থাকলে RSC লিখে স্পেস দিয়ে YES লিখে স্পেস দিয়ে পিন নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে যোগাযোগের জন্য একটি মোবাইল নম্বর লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে।
প্রতিটি বিষয় ও প্রতি পত্রের জন্য দেড়শ টাকা হারে চার্জ কাটা হবে। যেসব বিষয়ের দু’টি পত্র (প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র) রয়েছে যেসব বিষয়ের ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করলে দু’টি পত্রের জন্য মোট ৩০০ টাকা ফি কাটা হবে।

একই এসএমএসে একাধিক বিষয়ের আবেদন করা যাবে, এক্ষেত্রে বিষয় কোড পর্যায়ক্রমে ‘কমা’ দিয়ে লিখতে হবে। তবে অনলাইন ছাড়া অন্য কোনোভাবে আবেদন গ্রহণ করা হবে না বলে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

 

Admin

0 Comments

Please login to start comments