খেলা

সাদমানকে হারিয়ে হারের শংকায় বাংলাদেশ


সিনিউজ: আফগান স্পিনারদের ঘূর্ণির সামনে দাঁড়াতেই পারছে না বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। একের পর এক উইকেট বিলিয়ে সাজঘরে ফিরে যাচ্ছেন দলের মূল তারকা ব্যাটসম্যানরা। প্রথম ইনিংসে কোনো রান করতে না পারা সাদমান ইসলাম ভরসা দিচ্ছিলেন দ্বিতীয় ইনিংসে। ১১৪ বলে ৪১ রানের ইনিংস খেলে দলকে এগিয়ে নিচ্ছিলেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের সাথে। কিন্তু আবারো সেই আফগান স্পিন। অভিজ্ঞ মোহাম্মাদ নবীর বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পরে উইকেট দিয়ে বিদায় নেন সাদমান। ব্যাটিংয়ে নেমেছেন আরেক অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।

এর আগে আফগান স্পিনার রশিদ খানের ঘূর্ণিতে দ্রুতই সাজঘরে ফিরে গেছেন মিডল অর্ডারে দুই নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহীম ও মুমিনুল হক। দলীয় ২৪তম ওভারের প্রথম বলে রশিদের ডেলিভারিতে এলবি হন মুশফিকুর রহিম (২৩)। এক ওভার পরে সেই রশিদের শিকার হয়েই (৩) মাঠ ছাড়েন মুমিনুল হক। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত টাইগারদের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ১২২ রান।মাহমুদুল্লাহ ৫ রান ও সাকিব আল হাসান ২৭ রানে ব্যাট করছেন।

রোববার (৮ সেপ্টেম্বর) চতুর্থ দিনে আফগানদের হয়ে ব্যাটিংয়ে নামেন দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান আফসার জাজাই ও আহমেদ জাই। টাইগার বোলাররা আজও দ্রুত উইকেট না তুলতে পারলেও মুশফিকের অসাধারণ এক রান আউটে ফিরে গেছেন আহমেদ জাই। পরের ওভারের প্রথম বলেই জহির খানকে ফেরত পাঠিয়ে আফগানদের দ্বিতীয় ইনিংসে ২৬০ রানেই থামিয়ে দেন মিরাজ। ফলে চট্রগ্রাম টেস্ট জিততে হলে টাইগারদের প্রয়োজন ৩৯৮ রান। যা করতে পারলে নিজেদের সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জেতার রেকর্ড গড়তে হবে সাকিবদের।

৩৯৮ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি টাইগারদের। আফগান বোলার জহির খানের নিচু হয়ে আসা বলটা আঘাত করেছিল টাইগার ওপেনার লিটন দাসের প্যাডে। সঙ্গে সঙ্গে আঙুল তুলে দেন আম্পায়ার। এর আগের বলে রিভিউ নিয়ে রক্ষা পেয়েছিলেন তিনি। টিভি রিপ্লেতে দেখা যায়, বল উইকেটকিপারের গ্লাভসে যাওয়ার আগে লিটনের ব্যাট স্পর্শ করেনি। লিটন ৯ রান করে সাজঘরে ফিরেন।

দ্বিতীয় সেশনের শুরুতে লিটন দাস আউট হওয়ার পর ওয়ান ডাউনে নেমেছিলেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। কিন্তু দ্রুতই ফিরে গেলেন তিনি। দলীয় ৫২ রানে জহির খানের বলে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে ডিপ এক্সট্রা কাভারে আসগার আফগানের হাতে ক্যাচ হয়েছেন তিনি। তার সংগ্রহ ১২ রান।

প্রথম ইনিংসেই ৫ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের সামনে আতঙ্কে পরিণত হয়েছেন রশিদ খান। দ্বিতীয় ইনিংসে তার ঘূর্ণির সামনে টাইগার ব্যাটসম্যানরা কতক্ষণ টিকতে পারে সেটাই দেখার বিষয়।

চট্টগ্রামের এই জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে চতুর্থ ইনিংসে রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড আছে মাত্র ৩টি। তবে এই ভেন্যুতে বাংলাদেশ এখনও পর্যন্ত তাড়া করে জেতেনি কোনও ম্যাচেই।

চতুর্থ ইনিংসে এর আগে বাংলাদেশের জয়ের রেকর্ড রয়েছে সর্বোচ্চ ২১৯ রান তাড়া করার। রান তাড়া করে বাংলাদেশের জয়গুলোর মধ্যে রয়েছে, ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। ওই ম্যাচে ২১৫ রান তাড়া করে জিতেছিল সাকিব আল হাসানের দল। ২০১৪ সালে জিম্বাবুয়ের বাংলাদেশ জিতেছিল ১০১ রান তাড়া করে। ২০১৭ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১৯১ রান তাড়া করে জিতেছিল টাইগাররা।

সিনিউজ ডেস্ক

0 Comments

Please login to start comments