বাংলাদেশ

ভিসির আশ্বাসে সোমবার পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত


সি নিউজ ডেস্ক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সলিমুল্লাহ মুসলিম হলের (এসএম) আবাসিক শিক্ষার্থী ফরিদ হাসানের ওপর হামলা এবং এই ঘটনায় ডাকসুর ভিপি নূরের ওপর হামলার ঘটনার বিচারের আশ্বাস দিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান। আর এই আশ্বাসে আশ্বস্ত হয়ে সোমবার পর্যন্ত আন্দোলন প্রত্যাহার করেছেন ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নূর।

বুধবার (৩ এপ্রিল) বেলা সাড়ে ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যে তিনি এই ঘোষণা দেন।
নুরুল হক নূর বলেন, ‘আমরা আশ্বাস পেয়েছি। আমাদের কাছে আস্থার জায়গা মনে হয়েছে বলে আমরা কর্মসূচি থেকে সরে এসেছি। আজকে সাধারণ শিক্ষার্থীরা হামলার প্রতিবাদে একটি বিক্ষোভ মিছিলের ডাক দেন। উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ অভিভাবক আমাদের ডেকেছেন, আশ্বাস দিয়েছেন। সুতরাং আমরা সোমবার পর্যন্ত দেখতে চাই তিনি কি ব্যবস্থা নেন।’

নুরুল হক নূর আরও বলেন, নিপীড়ন বিরোধী আন্দোলন, কোটা সংস্কার আন্দোলন, নিরাপদ সড়কে আন্দোলন সর্বশেষ ডাকসুর ভিপির ওপর হামলা প্রত্যেকটি ঘটনার সঙ্গে ছাত্রলীগের কিছু চিহ্নিত সন্ত্রাসী জড়িত ছিল। আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে এই মেসেজটি দিতে চেয়েছি যে এই সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়ায় তারা বেপরোয়া হয়ে যাচ্ছে। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালাচ্ছে।

‘সেজন্য আমি ডাকসুর ভিপি হিসেবে ন্যায় বিচারের দাবিতে ডাকসুর সভাপতি উপাচার্যের বাসভবনের সামনে অবস্থান নিয়েছিলাম। আমার সঙ্গে আমার সহযোদ্ধারা ছিল। গতকাল  প্রক্টর স্যার এসে আমাদের আশ্বাস দেন। আমরা তাকে বলেছি আমরা আশ্বাস অনেকবার শুনেছি। কিন্তু ন্যায় বিচার পাইনি। সেজন্য আমরা উপাচার্যকে চেয়েছিলাম। উপাচার্য আমাদের সঙ্গে কথা বলেছেন। তিনি ভিসি লাউঞ্জে আমাদের নিয়ে গিয়েছিলেন। তিনি আমাদের অভিযোগগুলো শুনেছেন।

আমরা গতকালের ঘটনায় যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে আগামী সোমবারের মধ্যে ব্যবস্থা দেখতে চাই। যদি তারা সেটা নিতে ব্যর্থ হয় তাহলে আমরা অন্য কর্মসূচি ঘোষণা করব। এসময় তিনি  প্রত্যেক হল থেকে অবৈধ শিক্ষার্থীদের বের করে দেওয়ার আহ্বান জানান।
শামসুন নাহার হলের ভিপি ইমি বলেন, ‘একটি হলের  প্রশাসনিক কার্যালয়ে সবাই যেতে পারে। সেখানে ছেলে যেতে পারবে মেয়েরা যেতে পারবে না এরকম বিধি নিষেধ নেই। এসএম হলে যাওয়ার আগে হল প্রভোস্টকে জানিয়ে যাওয়া হয়েছে। কিন্তু তারা এখন শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা করছে। তারা মেয়েদের লাঞ্ছিত করেছে, আমাদের অশ্লীল ইঙ্গিত দিয়েছে। আমি একজন নারী  প্রতিনিধি, এই ঘটনার যদি বিচার না হয় তাহলে চরম মূল্য দিতে হবে।

উল্লেখ্য, সোমবার দিবাগত রাতে সলিমুল্লাহ মুসলিম হলে ফরিদ হাসান নামে এক ছাত্রকে বেদম মারধর করা হয়। তার  প্রতিবাদ জানাতে যান ডাকসুর ভিপি নূরসহ অনেকে। সেখানে গিয়ে তারা হল শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের হাতে অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। পরে সন্ধ্যা ৭ টার দিকে হল  প্রাধ্যক্ষের  প্রহরায় বের হবার সময় হামলার শিকার হন তিনিসহ আরও কয়েকজন।

এই ঘটনার বিচার দাবিতে নুরসহ অন্তত ২৫-৩০জন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ভিসির বাসভবনের সামনে অবস্থান নেন। সকাল ৯টার দিকে উপাচার্য তাদেরকে আলোচনার জন্য ভিসি লাউঞ্জে ডেকে নেন।

সিনিউজ ডেস্ক

0 Comments

Please login to start comments