জন স্বাস্থ্য ও সচেতনতা

ভাইরাস জনিত রোগে যেসব খাবার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

ভাইরাস জনিত রোগে যেসব খাবার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়


বিশ্বা স্বাস্থ্য সংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী পৃথিবীব্যপী এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১১৪৪২২ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৪০২৭ জন  এবং সুস্থ হয়েছে ৬৪০৮৮ জন |
সুতরাং, মৃত্যুর হার ৩.৪২% শতাংশ। অর্থাৎ, ১০০ জন রোগীর মধ্যে মৃত্যুবরণ করার সম্ভাবনা ৩.৪২ জনের এবং বেঁচে থাকার সম্ভাবনা ৯৬.৫৮ জনের। সুতরাং, করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হলে মৃত্যুবরণ করার চেয়ে বেঁচে থাকার সম্ভাবনা প্রায় ৯৬.৫৮/৩.৪২ বা ২৮.২৩ গুন বেশী।

কোভিড-১৯ নিয়ে অযথা আতংকিত হবেন না। সতর্ক থাকুন, সাবধানতা অবলম্বন করুন। ভাল থাকুন এবং অন্যকেও ভাল রাখতে,

- হ্যান্ডশেক, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন
- বারবার সাবান দিয়ে হাত ধৌত করুন
- ভীড় এড়িয়ে চলুন
- কনুইয়ের ভাঁজে হাঁচি/কাশি দিন
- যেখানে সেখানে থুতু ফেলবেন না
- প্রয়োজন না হলে ঘোরাঘুরি কম করুন
-মেয়েরা কম সংখ্যক অলংকার পরিধান করুন
-যত্রতত্র হাচি/কাশি দেয়া হতে বিরত থাকুন।
-মাস্ক পড়লে সেটি সঠিক নিয়ম অনুযায়ী ব্যাবহার করুন।

আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কে আরো শক্তি শালী করার জন্য প্রয়োজন ভিটামিন আর খনিজ লবনের। ভিটামিন সি, ভিটামিন ডি, ম্যাগনেশিয়াম, জিংক এবং সেলেনিয়াম। তারপর প্রতিদিন খেতে থাকুন। সুরক্ষার এক শক্ত প্রাচীর তৈরি করুন আপনার চারপাশে।

Vitamin C:দৈনিক কিছু না কিছু ভিটামিন সি খাওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ভিটামিন সি আমাদের দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কে শক্তিশালী করে তুলতে সহায়তা করে থাকে।
প্রাকৃতিক উৎসঃ আমলকী, আমড়া,লেবু,দেশি বরই,জামরুল,কচি ডাবের পানি, জাম্বুরা ইত্যাদি।

Vitamin D: আমাদের দেশে এখন অধিকাংশ মানুষেরই ভিটামিন ডি কম পাওয়া যাচ্ছে।প্রতিদিন কিছু সময় রোদের থাকার পাশাপাশি কিছু খাবার থেকেও ভিটামিন ডি পাওয়া যায়।
প্রাকৃতিক উৎসঃ ইলিশ মাছের ডিম, দেশী মুরগী/হাসের ডিমের কুসুম, ঘাস খাওয়া দেশী গরুর দুধের ঘি থেকে ভিটামিন ডি পাওয়া যাবে।

Magnesium: 400 mg daily (in citrate, malate, chelate, or chloride form)
প্রাকৃতিক উৎসঃ মিষ্টি কুমড়ার বীজ, তিল, কাজু বাদাম, সূর্যমুখীর বীজ থেকে ম্যগনেসিয়াম পাওয়া যাবে। ৮০ গ্রাম মিষ্টি কুমড়ার বীজ থেকে প্রায় ৪০০ মিলিগ্রাম ম্যাগনেসিয়াম পাওয়া সম্ভব।

Zinc: 20 mg daily
প্রাকৃতিক উৎসঃ লাল মাংস, মিষ্টি কুমড়ার বীজ, মাশরুম, তিল থেকে জিংক পাওয়া যাবে। ১০০ গ্রাম তিল থেকে প্রায় ৮ গ্রাম জিংক পাওয়া সম্ভব।

Selenium: 100 mcg (micrograms) daily
প্রাকৃতিক উৎসঃ টুনা মাছ, সরিষা, মাশরুম, ইলিশ মাছ থেকে সেলেনিয়াম পাওয়া যাবে। ১০ গ্রাম সরিষা থেকে প্রায় ২০ মাইক্রোগ্রাম সেলেনিয়াম পাওয়া সম্ভব।

যদিও বিভিন্ন খাবার থেকে ভিটামিন ও খনিজ লবন পাওয়া সম্ভব তবে সঠিক পরিমাণটা হিসেব করে প্রতিদিন খাওয়া টা কঠিন।

এই ভিটামিন ও খনিজ লবন খাওয়ার পাশাপাশি প্রতিদিন এক কাপ করে টক দই খান, উপকারী ব্যকটেরিয়ার সংখ্যা বাড়ান। চিনি,ভাজাপোড়া, বাহিরের খাবার, অতিরিক্ত তেলযুক্ত খাবার পরিহার করুন।

সতর্কতাঃ এক সাথে টানা বেশীদিন সেলেনিয়াম খাওয়া থেকে বিরত থাকুন, উচ্চ মাত্রায় ভিটামিন ডি ২ সপ্তাহের বেশী খাবেন না।

তাসনিমা হক

নিঊট্রেশনিষ্ট ও হেলথ এডুকেশন অফিসার বি আই এইচ এস জেনারেল হাসপাতাল

চীফ নিঊট্রেশন অফিসার হেলথ এন্ড নিঊট্রেশন অর্গানাইজেশন

References:
1. Vitamin C:

Gonzalez MJ, Berdiel MJ, Duconge J (2018) High dose vitamin C and influenza: A case report. J Orthomol Med. June, 2018, 33(3). https://isom.ca/article/high-dose-vitamin-c-influenza-case-report.

Gorton HC, Jarvis K (1999) The effectiveness of vitamin C in preventing and relieving the symptoms of virus-induced respiratory infections. J Manip Physiol Ther, 22:8, 530-533. https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pubmed/10543583

Hemilä H (2017) Vitamin C and infections. Nutrients. 9(4). pii:E339. https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pubmed/28353648.

OMNS (2007) Vitamin C: a highly effective treatment for colds. http://orthomolecular.org/resources/omns/v03n05.shtml.

OMNS (2009) Vitamin C as an antiviral http://orthomolecular.org/resources/omns/v05n09.shtml.

Yejin Kim, Hyemin Kim, Seyeon Bae et al. (2013) Vitamin C is an essential factor on the anti-viral immune responses through the production of interferon-α/β at the initial stage of influenza A virus (H3N2) infection. Immune Netw. 13:70-74. https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pubmed/23700397.

Klenner FR. The treatment of poliomyelitis and other virus diseases with vitamin C. J South Med Surg 1949, 111:210-214. http://www.doctoryourself.com/klennerpaper.html.

2. Vitamin D:

Cannell JJ, Vieth R, Umhau JC et al. (2006) Epidemic influenza and vitamin D. Epidemiol Infect. 134:1129-1140. https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pubmed/16959053.

Cannell JJ, Zasloff M, Garland CF et al. (2008) On the epidemiology of influenza. Virol J. 5:29. https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pubmed/16959053.

Ginde AA, Mansbach JM, Camargo CA Jr. (2009) Association between serum 25-hydroxyvitamin D level and upper respiratory tract infection in the Third National Health and Nutrition Examination Survey. Arch Intern Med. 169:384-390. https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pubmed/19237723.

Martineau AR, Jolliffe DA, Hooper RL et al. (2017) Vitamin D supplementation to prevent acute respiratory tract infections: systematic review and meta-analysis of individual participant data. BMJ. 356:i6583. https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pubmed/28202713.

Urashima M, Segawa T, Okazaki M et al. (2010) Randomized trial of vitamin D supplementation to prevent seasonal influenza A in schoolchildren. Am J Clin Nutr. 91:1255-60. https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pubmed/20219962.

von Essen MR, Kongsbak M, Schjerling P et al. (2010) Vitamin D controls T cell antigen receptor signaling and activation of human T cells. Nat Immunol. 11:344-349. https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pubmed

সিনিউজ ডেস্ক

0 Comments

Please login to start comments