বিদেশি চ্যানেলে ১ এপ্রিল থেকে দেশীয় বিজ্ঞাপন বন্ধ: তথ্যমন্ত্রী


সি নিউজ ডেস্ক : পহেলা এপ্রিল থেকে বিদেশি চ্যানেলে বাংলাদেশী বিজ্ঞাপন প্রচার বন্ধ না হলে ক্যাবল অপারেটরদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেবে সরকার বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেন, সম্মিলিত উদ্যোগ এই সাংবাদিকদের চাকরির সুরক্ষা করা প্রয়োজন। শনিবার (৩০ মার্চ) রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে ব্রডকাস্ট জার্নালিস্ট সেন্টার আয়োজিত ‘সংকটে বেসরকারি টেলিভিশন’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এ নির্দেশনা দেন।

সরকার, মালিকপক্ষ, বিজ্ঞাপনদাতা ও ক্যাবল অপারেটরের সম্মিলিত উদ্যোগে গণমাধ্যম শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে পারে বলেছেন ইকবাল সোবহান চৌধুরী।

এর আগে গত ১৩ মার্চ তথ্য মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা জারি করে। নির্দেশনায় বলা হয় বাংলাদেশে ডাউনলিংকপূর্বক সম্প্রচারিত সব বিদেশি টিভি চ্যানেলে দেশি পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচার অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে।

এ নির্দেশ অমান্য করলে ডিস্ট্রিবিউশন লাইসেন্স বাতিল/স্থগিত এবং ২৮ ধারা মোতাবেক ২ বছর পর্যন্ত কারাদন্ড হতে পারে।

তথ্য মন্ত্রণালয় এর আগে জারিকৃত এক পত্রে বলেছে, কেবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক পরিচালনা আইন-২০০৬ এর ধারা ১৯ এর ১৩ নম্বর উপধারায় বিদেশি টিভি চ্যানেলের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন প্রচার সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

গণমাধ্যমকে বাঁচিয়ে রাখতে সরকারকে উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন সাংবাদিকগণ। রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে সম্প্রচার সাংবাদিক কেন্দ্র আয়োজিতসংকটে বেসরকারি টেলিভিশন শীর্ষক আলোচনা সভায় এ আহ্বান জানানো হয়।

প্রতিনিয়তই সাংবাদিক ছাঁটাই এবং নিয়মিত বেতন না হওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন সাংবাদিক নেতারা।মুনাফা রাজনীতি ও প্রচারকে ত্রিকোণ আঁতাত হিসেবেও মন্তব্য করেন তারা।

গণমাধ্যম কর্মী আইন দ্রুত সংসদে পাস করার তাগিদ দেন সাংবাদিক নেতারা দেশ সেবায় জীবন উৎসর্গ করা পেশা সাংবাদিকতা আজ নিরাপত্তাহীন জীবনে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেন সাংবাদিকরা।

আলোচনা সভায় তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদ চ্যানেল ২৪ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ কে আজাদ চৌধুরী ডিবিসি নিউজের চেয়ারম্যান ইকবাল সোবহান চৌধুরী এডিটর-ইন-চিফ ইশতিয়াক রেজাসহ সম্প্রচার কেন্দ্রের সাংবাদিক নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

 

সিনিউজ ডেস্ক

0 Comments

Please login to start comments