জাতীয়

বিএসএমএমইউতে খালেদা জিয়া


সি নিউজ ডেস্ক : বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) নেয়া হয়েছে। সোমবার বেলা সোয়া ১২টার সময় তাকে বিএসএমএমইউতে নেয়ার জন্য কারাগার থেকে বের করা হয়। সাড়ে ১২টার দিকে তিনি বিএসএমএমইউতে পৌঁছান। 

খালেদা জিয়া বিএসএমএমইউতে পৌঁছেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ডাঃ কনক কান্তি বড়ুয়া। তিনি জানান, খালেদা জিয়ার জন্য হাসপাতালের কেবিন ব্লকের ৬২১ এবং ৬২২ নম্বর কক্ষ আগে থেকেই প্রস্তুত রাখা হয়। তার চিকিৎসার জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ডের নেতৃত্ব দিচ্ছেন মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক এবং বিভাগীয় চেয়ারম্যান ডা. জিলন মিঞা সরকার। সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল জলিল চৌধুরী অবসরে যাওয়ার কারণে তিনি এ দায়িত্ব পান।

মেডিক্যাল বোর্ডের অন্য সদস্য হলেন- ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক বদরুন্নেসা আহমেদ, হৃদরোগ বিভাগের অধ্যাপক সজল কৃষ্ণ ব্যানার্জী, রিউমোটলজি বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দ আতিকুল হক, অর্থোপেডিক বিভাগের অধ্যাপক নকুল কুমার দত্ত।

এদিকে,  খালেদা জিয়াকে  বিএসএমএমইউতে আনা হচ্ছে এ খবরে শাহবাগ এলাকায় বিএনপির  কর্মী ও সমর্থকদের ভিড় দেখা যায়। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

খালেদা জিয়াকে বিএসএমএমইউতে নেয়ার প্রস্তুতি বিষয়ে সোমবার সকালে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার মাহাবুবুল ইসলাম জানান, খালেদা জিয়াকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে নেওয়া হবে। এ বিষয়ে প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।

এদিকে,  বেলা সাড়ে ১১টার দিকে খালেদা জিয়ার ব্যবহার্য জিনিসপত্র কারাগার থেকে হাসপাতালে আনা হয় বলে জানা গেছে। বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান জানান, চেয়ারপারসনকে হাসপাতালে নেয়ার বিষয়ে শুনেছি। এর জন্য কেবিন ব্লকের ৬২১ এবং ৬২২ নম্বর রুম প্রস্তুত রাখা হয়েছে বলে জেনেছি।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের কারাদন্ড ও আর্থিক জরিমানা করা হয়। ওই  রায় ঘোষণার পরপরই খালেদা জিয়াকে পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হয়। বিএসএমএমইউতে স্থানান্তরের আগে তিনি সেখানেই ছিলেন।  উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়াকে মোট ১৭ বছরের কারাদন্ড সহ অর্থদন্ডের রায় দিয়েছেন আদালত।

Admin

0 Comments

Please login to start comments