পপুলার থেকে স্থায়ীভাবে বাদ সেই ‘চুমু খাওয়া’ ডাক্তার


সি নিউজ ডেস্ক : পপুলার হাসপাতালের কোনো শাখাতেই রোগী দেখতে পারবেন না সম্প্রতি যৌন হয়রানির দায়ে অভিযুক্ত চর্ম ও যৌন চিকিৎসক শওকত হায়দার। হয়রানির শিকার ঢাকার ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী থেকে পাওয়া অভিযোগের ভিত্তিতে গঠিত পপুলার হাসপাতালের তদন্ত কমিটি ঘটনার সত্যতা পেয়ে ওই ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

পপুলার হাসপাতালের মানবসম্পদ ও প্রশাসন বিভাগের প্রধান অচিন্ত্যকুমার নাগ জানান, গত শনিবার ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের এক নারী শিক্ষার্থীকে চিকিৎসা দেবার নাম করে তার গালে চুমু খান ডা. শওকত হায়দার। ওই ঘটনার প্রেক্ষিতে হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিষদের সমন্বয়ে ওই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে একটি তদন্ত কমিটি হয়েছিল।

তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে আমাদের প্রধান শাখাসহ দেশের সবগুলো শাখাতেই প্র্যাকটিস করতে না দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ওই চিকিৎসক আমাদের এখানে একজন ডাক্তারের সাথে চেম্বার ভাগ করে রোগী দেখতেন। আমাদের কোনো কর্মী না। যেহেতু তিনি আমাদের কর্মী না সেহেতু তার বিরুদ্ধে আমরা এর বাইরে আর কোনো ব্যবস্থা নিতে পারবো না।

স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাশ করা চিকিৎসক শওকত হায়দার কোনো সরকারি চাকরি করেন না। তার বাড়ি যশোরে। শুক্র-শনিবার ছাড়া অন্য দিনগুলোয় তিনি পপুলার হাসপাতালের ধানমন্ডি শাখায় রোগী দেখতেন।
 

সিনিউজ ডেস্ক

0 Comments

Please login to start comments