নির্মিত হচ্ছে সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকার ৫৮৩ মেগাওয়াট কম্বাইন্ড সাইকেল বিদ্যুৎকেন্দ্র 


সি নিউজ ডেস্ক : মেঘনাঘাটে একক ভাবে দেশের বৃহত্তম ৫৮৩ মেগাওয়াট কম্বাইন্ড সাইকেল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে সামিট গ্রুপের সঙ্গে মার্কিন কোম্পানি জিই কনসোর্টিয়াম ও বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। ২০২২ সালের মার্চের মধ্যে বিদ্যুৎকেন্দ্রটি উৎপাদন শুরু করবে। এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কার্যাদেশ মূল্য ৩৯০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বা প্রায় সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকা।

বিদ্যুৎ ভবনে অনুষ্ঠিত চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ উপদেষ্টা ড. তৌফিক ই ইলাহী চৌধুরী। সামিট গ্রুপের চেয়ারম্যান আজিজ খানের সভাপত্বিতে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, মার্কিন রাষ্টদূত আর্ল আর মিলার। অতিথি হিসেবে যোগদান করেন, বিদ্যুৎ বিভাগের সিনিয়র সচিব ড. আহমদ কায়কাউস, জ্বালানি সচিব আবু হেনা মোঃ রহমাতুল মুনিম, জিই-র চেয়ারম্যান পাওয়ার জন রাইস, বিপিডিবি’র চেয়ারম্যান প্রকৌশলী খালেদ মাহমুদ, পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান মোঃ রুহুল আমীন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে ড. তৌফিক ই ইলাহী চৌধুরী বলেন, ১০ বছর আগে বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশ সম্পর্কে বলেছিলেন এ জার্নি অব ডার্কনেস। কিন্তু শেখ হাসিনার সরকার সেখানে আলো ফুটিয়েছে। এখন দেশের শত ভাগ মানুষ বিদ্যুতের দোড়গোরায়। তিনি বেসরকারি খাতে বিদ্যুৎ উৎপাদনে সামিটের ভূমিকার প্রশংসা করেন।

ড. আহমদ কায়কাউস বলেন, ১৯৯৬ সালে বেসরকারি বিদ্যুতের যাত্রা শুরু করেছিলেন শেখ হাসিনার সরকার। আবার সেই শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই তার পূর্ণতা পেল। এখন দেশের ৫৬ ভাগ বিদ্যুৎ বেসরকারি খাতে উৎপাদিত হচ্ছে। তিনি বলেন, শুধু বিদ্যুৎ উৎপাদনই নয়, কারিগরি খাতেও বেসরকারি খাত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

রাষ্ট্রদূত মিলার বলেন, নতুন এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। তিনি বলেন, জিই-র কারিগরি দক্ষতা বিশ্বখ্যাত। আমি গর্বিত যে আমেরিকা বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বিনিয়োগকারী। বহু আমেরিকান কোম্পানি বাংলাদেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে।

মেঘনাঘাট বিদ্যুৎ কেন্দ্রে সামিট বিশ্বের সর্ববৃহৎ এবং সবচেয়ে কার্যকরি হেভি ডিউটি গ্যাস টারাবইন, জিই-র ৯এইচএ ফ্লিট ব্যবহার করবে। এটি আইএসও কন্ডিশনে ৬৩ শতাংশ কার্যকরি। বর্তমান গ্যাসের মূল্য অনুযায়ি এই বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রতি কিলোওয়াট ঘন্টা বিদ্যুতের দাম পড়বে ২ দশমিক ১৭৬ টাকা যা এ যাবৎ কালের সর্বনিম্ন।

সিনিউজ ডেস্ক

0 Comments

Please login to start comments