জাতীয়

নবম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নে ফের মন্ত্রিসভা কমিটি গঠন: তথ্যমন্ত্রী


সি নিউজ ডেস্ক:  গণমাধ্যম কর্মীদের জন্য নবম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নে ফের মন্ত্রিসভা কমিটি গঠন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনী মিলনায়তনে মিট দ্য প্রেসে রোববার দুপুরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন মন্ত্রী।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, প্রথমত আমি বলব যে আপনারা আপনাদের শ্রমিক হিসেবে চিন্তা না করে গণমাধ্যম কর্মী হিসেবে চিন্তা করুন। আপনারা জানেন যে নবম ওয়েজ বোর্ড নিয়ে কাজ চলছে। একটি মন্ত্রিসভা কমিটি আছে, সেই কমিটিতে কিন্তু ফের এটিকে উস্থাপন করতে হবে। আজকে মন্ত্রিসভা করার চিন্তা করেছিলাম, বিগত মন্ত্রী পরিষদ সভায় যারা সদস্য ছিলেন তাদের সাথে আমি কথা বলেছিলাম। কিন্তু নতুনভাবে আবার সরকার গঠিত হয়েছে তাই আগের কমিটি দিয়ে কাজ করা সম্ভব হচ্ছে না।

তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নতুনভাবে মন্ত্রিসভা কমিটি গঠন করবেন, এরপর সেটি নতুন মন্ত্রিপরিষদ কমিটির সভায় আলোচনা হবে। এরপর আপনাদের সাংবাদিক নেতাদের সাথে আমাদের একটি বৈঠক আছে, সেটি সম্ভবত ২৩ তারিখে। এরপর স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে বৈঠক করে যতদ্রুত সম্ভব ওয়েজ বোর্ড বাস্তবায়ন কাজ করব।

এটি অনেক দূর এগিয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এটি করতে গেলে কিছু ধাপ অতিক্রম করতে হয়। নতুনভাবে মন্ত্রিসভা কমিটি গঠন করতে হবে। সবার সাথে আলোচনা করতে হবে। আরেকটি বিষয় সাংবাদিক বন্ধুরাই নিয়ে এসেছেন, যেটি আমি মনে করি যৌক্তিক, সেটি হল ওয়েজ বোর্ডে টেলিভিশন সাংবাদিকদের যুক্ত করা। ওয়েজ বোর্ড যখন চালু হয় বিটিভি ছাড়া আমাদের দেশে আর কোনো কিছু ছিল না। সেজন্য ওয়েজ বোর্ডের মধ্যে টেলিভিশনের সাংবাদিকরা অন্তর্ভূক্ত ছিলেন না। এখন তো টেলিভিশন বিরাট ব্যাপার। অনেক টেলিভিশন, সুতরাং বিষয়টা অন্তর্ভূক্ত হওয়া দরকার।

একটা ওয়েজ বোর্ড গঠন করার পর টেলিভিশনের জন্য আবার করা ঠিক হবে? নাকি সবাইকে নিয়ে এক সঙ্গে করা ভাল হবে, এগুলো নিয়ে আলোচনা করে যতদ্রুত সম্ভব ওয়েজ বোর্ড বাস্তবায়ন করা হবে।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই আইন সাংবাদিকদের জন্য না, সারাদেশের মানুষের নিরাপত্তার জন্য। সাংবাদিকদের মধ্যে এনিয়ে যে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা রয়েছে তা দূর করার চেষ্টা করব।

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ডের বিচার নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি নতুন দায়িত্ব নিয়েছি, আমি এখনই বলতে পারব না যে কতদিনের মধ্যে এটি শেষ হবে। বিষয়টি নিয়ে আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইনমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলব। তবে আমি মনে করি এটা সুরাহা করা দরকার।

রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেতারকে আরো যুগোপযোগী করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, সংবাদ মাধ্যমের প্রাণ হচ্ছে রিপোর্টাররা। ডেস্কে বসে সঠিক সংবাদ অনেক সময় চিহ্নিত করা সম্ভব হয় না। রিপোর্টারদের ছোট সংবাদও অনেক সময় সমাজকে নাড়া দেয়, সমাজের তৃতীয় নয়ন খুলে দেয়, বিবেককে নাড়া দেয়। আবার ছোট একটি সংবাদ বিশৃঙ্খলাও সৃষ্টি হতে পারে। এ ক্ষেত্রে সংবাদ করার ক্ষেত্রে দায়িত্বশীল হতে হবে।

ডিআরইউয়ের সভাপতি ইলিয়াস খানের সভাপতিত্বে মিট দ্য প্রেসে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক কবীর খানসহ কার্যনির্বাহী কমিটির অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সিনিউজ ডেস্ক

0 Comments

Please login to start comments