দেশজুড়ে

চাঁপাইনবাবগঞ্জে যুবলীগ নেতা খুনে নয়জনের ফাঁসি


সি নিউজ ডেস্ক : চাঁপাইনবাবগঞ্জে যুবলীগ নেতা ও সোনা মসজিদ স্থলবন্দর সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের কোষাধ্যক্ষ মুনিরুল ইসলাম হত্যা মামলায় নয়জনকে ফাঁসি ও দুইজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। এছাড়া দণ্ডপ্রাপ্ত প্রত্যেককে দুই লাখ টাকা করে অর্থদণ্ড করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক শওকত আলী আসামিদের উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- শিবগঞ্জ উপজেলার বালিয়াদীঘি গ্রামের আলী ঘোষের ছেলে আখেরুল ইসলাম, একই এলাকার মামলত হোসেন ওরফে মোবারক হোসেনের ছেলে সিরাজুল ইসসাল মুন্সি, চত্বরপুর গ্রামের সেন্টু কাপড়িয়ার ছেলে তোহরুল ইসলাম ওরফে টুটুল, রশিকনগর গ্রামের আব্দুল জব্বারের ছেলে আব্দুল মালেক, সাহাপাড়া গ্রামের হাজী মঞ্জুরের ছেলে সিরাজুল ইসলাম, চরভবানীপুর গ্রামের কসিমুদ্দীনের ছেলে শরিফুল ইসলাম ওরফে শরিফ, পারচৌকা গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে মো. মাসুদ, রশিকনগর গ্রামের মৃত হোসেন আলীর ছেলে সিরাজুল ইসলাম সেন্টু এবং ছত্রাজিতপুর গ্রামের মোসলেম উদ্দীনের ছেলে আব্দুস সালাম।

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন পারুল বেগম ও মো. মাসুদ ওরফে লালচান।

অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর আঞ্জুমান আরা জানান, দাওয়াত দেওয়ার কথা বলে ২০১৪ সালের ২৪ অক্টোবর সন্ধ্যায় যুবলীগ নেতা মুনিরুল ইসলামকে শিবগঞ্জ স্টেডিয়ামের পেছনে গুলি করে হত্যা করে আখেরুলসহ বেশ কয়েকজন। মূলত সোনা মসজিদ স্থলবন্দরের চাঁদার টাকা ভাগ-বাটোয়ারাকে কেন্দ্র করে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। পরদিন নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে শিবগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) মতিউর রহমান ২০১৫ সালের ১৫ জুন ১৫ জনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। ২৩ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে বৃহস্পতিবার বিচারক এই রায় ঘোষণা করেন।

রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন নিহত মুনিরুলের স্ত্রী রহিমা বেগম ও সরকারি পক্ষের কৌশুলি আঞ্জুমান আরা। তারা দ্রুত রায় বাস্তবায়নের দাবি জানান।

 

Admin

0 Comments

Please login to start comments