দেশজুড়ে

গাইবান্ধায় নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে ৫ টাকা কমে চিনি বিক্রি শুরু


সি নিউজ ডেস্ক : শ্রমিক-কর্মচারী, কর্মকর্তা ও আখচাষীদের পাওয়া টাকা পরিশোধের জন্য অবশেষে সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে ৫ টাকা কমে চিনি বিক্রি শুরু করেছে বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প সংস্থা। গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মহিমাগঞ্জে অবস্থিত রংপুর চিনিকল লিমিটেডের শ্রমিক-কর্মচারী কর্মকর্তা ও আখচাষীদের পাওনা ১৫ কোটি ৭৫ লক্ষ টাকা। চিনি বিক্রির এই টাকা দিয়ে চিনিকলের পাওনা পরিশোধ করা হবে।

রোববার রংপুর চিনিকল লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আনোয়ার হোসেন আকন্দ এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, চলতি মাসের মাঝামাঝি সময়ে সরকার এ সিদ্ধান্ত নেয়। রংপুর চিনিকল সূত্রে জানা যায় শ্রমিক-কর্মচারী, কর্মকর্তা ও আখচাষীদের ১৫ কোটি ৭৫ লক্ষ টাকা পাওনা রয়েছে। তার মধ্যে কৃষকদের পাওনা রয়েছে ৯ কোটি ৭৫ লক্ষ টাকা ও শ্রমিক-কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের বেতন ভাতার পরিমাণ ৬ কোটি টাকা।

২০১৮-১৯ মাড়াই মৌসুমে আখমাড়াই গত বছরের ৭ ডিসেম্বর শুরু হয়। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত মাড়াই কার্যক্রম চলে। ৭০ দিনে ৫৬ হাজার ২৬৩ মেট্রিক টন আখমাড়াই করা হয়।

চিনি উৎপাদন হয়েছে ২ হাজার ২৪৩ মেট্রিক টন। এ মৌসুমে আটটি ক্রয় কেন্দ্রের মাধ্যমে কৃষকদের নিকট থেকে ১৮ কোটি ২৫ লক্ষ টাকার আখ ক্রয় করে রংপুর চিনিকল লিমিটেড। এর মধ্যে ৬ কোটি ৭৫ লক্ষ টাকা পরিশোধ করা হয়। বাকি ৯ কোটি ৭৫ লক্ষ টাকা বকেয়া রয়েছে। ফলে কৃষকগণ হতাশ হয়ে পড়ে।

গত বছরের নভেম্বর মাস থেকে ৭৮৭ জন শ্রমিক-কর্মচারী ও কর্মকর্তার ৫ মাসের ৬ কোটি টাকা বেতন-ভাতা বকেয়া রযেছে। বেতন-ভাতা না পেয়ে শ্রমিক-কর্মচারী ও কর্মকর্তারা মানবেতন জীবনযাপন করছেন। এসব কারণে চিনিকলের কার্যক্রম প্রায় স্থবির হয়ে পড়েছে।

চিনিকল সূত্রে জানা যায়, রংপুর চিনিকলের চিনি বিক্রি না হওয়ার ফলে টাকার অভাবে শ্রমিক-কর্মচারী, কর্মকর্তাদের এবং আখচাষীদের পাওনা পরিশোধ করা যাচ্ছে না। রংপুর চিনিকলের গুদামে সাড়ে ৪ হাজার মেট্রিক টন চিনি অবিক্রীত অবস্থায় পড়ে আছে। যার মূল্য প্রায় ২২ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা।

রংপুর চিনিকল লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আনোয়ার হোসেন আকন্দ বলেন, বিএসএফআইসির অধীনে চিনিকলগুলোর মজুদ চিনি ছাড়াও সরকার ১ লক্ষ মেট্রিক টন চিনি আমদানি করে।

আমদানি করা চিনির মূল্য প্রায় ৫০০ কোটি টাকা। প্রতি কেজি চিনি ৫ টাকা কমে বিক্রি শুরু হয়েছে। চিনি বিক্রি শেষ হলে রমজানের আগেই শ্রমিক-কর্মচারী, কর্মকর্তা ও আখচাষীদের পাওয়া টাকা পরিশোধ করা হবে।

Admin

0 Comments

Please login to start comments