খেলা

ক্ষোভ থেকেই মাশরাফীর বিদায়ে বিলম্ব:জার্মান সংবাদমাধ্যম


সিনিউজ: ক্রিকেট তারকা মাশরাফী বিন মর্তুজা কবে অবসরে যাবেন? এই প্রশ্নটি বেশ কিছু দিন ধরে ঘুরপাক খাচ্ছে খবরের কাগজের পাতায়। বিবিসির পক্ষ থেকে ম্যাশকে বিদায়ের জন্য প্রস্তুতির কথাও জানানো হয়েছে। তবে এখনই রাজি নন ওয়ান ডে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক। বিষয়টি নিয়ে সোমবার (১৯ আগস্ট) একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে জার্মানভিত্তিক বাংলা অনলাইন পত্রিকা ‘ডয়চে ভেলে’। খবরে বলা হয়েছে, মাশরাফীর জন্য বিদায়ী ম্যাচ আয়োজন করতে চেয়েছিল বিসিবি। কিন্তু মাশরাফী জানিয়ে দিয়েছেন এখনই তা চান না। কিন্তু বিবিসির এই আয়োজনে কেন রাজি হলেন না মাশরাফী? এমন প্রশ্ন ডয়সে ভেলের।
পত্রিকাটি বলছে, মাশরাফী কি শুধু আরো ভালো সময়, আরো ভালো প্রতিপক্ষের অপেক্ষায় থাকতে চাইছেন? এ বছর আর সেই সুযোগ নেই। ২০২০ সালেও বাংলাদেশ প্রথম ওয়ানডে খেলার সুযোগ পাবে এপ্রিল-মে-তে, আয়ারল্যান্ডে। বিশ্বকাপে লর্ডসে অবসর নেয়ার ‘সুযোগ' যিনি গ্রহণ করেননি, সেই মাশরাফী আয়ারল্যান্ডকে উপযুক্ত প্রতিপক্ষ এবং ভেনু ভাববেন বলে তো মনে হয় না।
‘সবাই চান দেশের মাটিতে শেষ ম্যাচটা খেলতে। সেই সুযোগ সবাই পান না। বীরেন্দ শেবাগ থেকে শুরু করে হালের যুবরাজ সিং পর্যন্ত উপমহাদেশের কত ক্রিকেটারের ক্যারিয়ারই তো শেষ হয়েছে ‘সম্মানজনক' বিদায়ের সুযোগ না পাওয়ার আক্ষেপ নিয়ে।’ডয়চে ভেলে বলছে, মাশরাফীর সামনে তেমন আশঙ্কা একেবারেই ছিল না। তাঁকে যোগ্য সম্মান দেয়ার চেষ্টা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। জিম্বাবোয়ের বিপক্ষে ওয়ানডেটা ছিল সেরকমই এক সুযোগ। সেই সুযোগ কি স্রেফ সময় নিতে চান বলেই হাতছাড়া করলেন মাশরাফী? পরবর্তী সুযোগটা যে ২০২০-এর মে-র আগে আসবে না। তখন এলেও তা মাশরাফী নিতে চাইবেন না এমন ইঙ্গিত খুব স্পষ্ট।
‘বাংলাদেশ পরের ওয়ানডে সিরিজটা খেলবে ২০২০ সালের ডিসেম্বরে। হ্যাঁ, দেশের মাটিতেই হবে সেই সিরিজ। কিন্তু বয়স আরো এক বছর চার মাস বাড়লে কী সুবিধাটা পাবেন মাশরাফী? ফিটনেস বা ফর্ম খুব ভালো হয়ে যাওয়ার সুযোগ খুবই কম। তাহলে?’
তবে মাশরাফী সময় নিতে নয়, বরং বিবিসির প্রতি ক্ষোভ থেকে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে ডয়চে ভেলের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা বলা হয়েছে, ‘মাশরাফী সময় নিতে নয়, প্রতিবাদ বা ক্ষোভ জানাতেই অবসরের ‘সম্মানজনক অফার'টা নেননি। তাঁর সঙ্গে কোনো কথা না বলে বিসিবির এত দূর এগিয়ে যাওয়ার বিষয়টি সম্মানজনক মনে হয়নি বলেই তাঁর এই সিদ্ধান্ত। সময়ই বলবে, উপযুক্ত সময়ের অপেক্ষায় থাকলেন, নাকি সম্মানজনক বিদায়ের সুযোগকে ‘দয়া' ভেবে প্রত্যাখ্যান করলেন অভিমানী মাশরাফী।’
‘তবে তাঁর জন্য দেশের মাটিতে বিদায় নেয়ার সুযোগ যে প্রায় শেষ তা এখন দিনের আলোর মতোই স্পষ্ট।’

সিনিউজ ডেস্ক

0 Comments

Please login to start comments