এফআর টাওয়ারের দু’রকম নকশা হাতে পেয়েছে তদন্ত কমিটি


সি নিউজ ডেস্ক : বনানীতে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত এফআর টাওয়ার নিয়ে দ্বিতীয় দফায় বৈঠক করেছে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের ৮ সদস্যের তদন্ত কমিটি। এফআর টাওয়ারের দুটি নকশা হাতে পান তারা। একটি নকশায় ভবনটিকে ১৮ তলা ও অন্যটি ২৩ তলা দেখানো হয়েছে।

বিষয়টি জানিয়েছেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা ইফতেখার হোসেন।গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিমের নির্দেশে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) মোঃ ইয়াকুব আলী পাটওয়ারীকে আহ্বায়ক এবং মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব মোঃ ফাহিমুল ইসলামকে সদস্য সচিব এ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল।

গণপূর্ত মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, তদন্ত কমিটি এ পর্যন্ত আনুষ্ঠানিকভাবে দুটি বৈঠক করেছে। প্রথম বৈঠকে ভবনটি সম্পর্কে কী কী তথ্য সংগ্রহ করা হবে, তা ঠিক করা হয়। যার মধ্যে ছিল নকশা অনুমোদনের সঙ্গে রাজউকের কোন কোন কর্মকর্তা জড়িত ছিলেন। ভবনটি নির্মাণের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট স্থপতি ও  প্রকৌশলী কে যুক্ত ছিলেন। বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ ওই ভবনটির উচ্চতা কত রাখতে বলেছিল। ভবনটি নির্মাণের সময় ওই এলাকায় রাজউকের কারা দায়িত্বে ছিলেন।

তদন্ত কমিটি সূত্রে জানা গেছে, এফআর টাওয়ারের তদন্তের কাজে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) ও ভবন কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় দলিলপত্র চাওয়া হয়। ভবন কর্তৃপক্ষ তদন্ত কমিটির কাছে একটি নকশা জমা দিয়েছে। তাতে ভবনের উচ্চতা ২৩ তলা দেখানো হয়েছে। কিন্তু রাজউক তদন্ত কমিটিকে যে নকশা দিয়েছে তাতে উচ্চতা ১৮ তলা বলা আছে।  প্রাথমিকভাবে ১৮ তলার নকশাটি তাদের কাছে আসল বলে মনে হয়েছে। ২৩ তলার নকশাটি সঠিক কি না, সে সংক্রান্ত কাগজপত্রও রাজউক থেকে চাওয়া হয়েছে।

এদিকে গঠিত কমিটি সম্পর্কে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম বলেছিলেন, ‘তদন্ত কমিটি এফআর টাওয়ারের প্লান অনুমোদনের প্রক্রিয়ার ভেতরে কোনো নিয়মের ব্যত্যয় ঘটেছে কিনা, অনুমোদিত প্লানের বাইরে বির্ল্ডিং নির্মাণ হয়েছে কিনা, হয়ে থাকলে এর সঙ্গে কারা কারা জড়িত, ডেভেলপার, ভবন মালিক এমনকি আমাদের সংস্থার কেউ জড়িত থাকলে তার সম্পর্কে  প্রতিবেদন দেবেন।’

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) বনানীর এই টাওয়ারে ভয়াবহ আগুনে ২৬ জন নিহত হয়েছেন এবং আহত হয়েছেন অনেকে।

সিনিউজ ডেস্ক

0 Comments

Please login to start comments