খেলাধুলা

‘আর্জেন্টিনার এটাই শেষ সুযোগ’


সিনিউজ: ২০১৪ সালের বিশ্বকাপ ফাইনালে জার্মানির কাছে আর্জেন্টিনার হারে দক্ষিণ আমেরিকানদের হৃদয় ভেঙেছিল। সেই কষ্টের রেশ কাটতে না কাটতেই কোপা আমেরিকায় টানা দুইবার ফাইনালে হার। দুঃখ ভারাক্রান্ত হৃদয়ে আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসর নিয়েছিলেন লিওনেল মেসি। পরে তিনি ফিরলেন এবং ইকুয়েডরের বিপক্ষে বাছাইয়ের শেষ ম্যাচে হ্যাটট্রিক করে দলকে নিলেন রাশিয়া বিশ্বকাপে। ৩০ বছর বয়সী ফরোয়ার্ডের মতে ফুটবলের শীর্ষ সাফল্য পাওয়ার এটাই শেষ সুযোগ। এই মিশনে দেশ ছাড়ার আগে নিজের প্রত্যাশা ও হতাশা নিয়ে কথা বলেছেন মেসি।টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক সাক্ষাৎকারে মেসি জানান, ২০১৪ সালে ফাইনাল হারের ক্ষত এখনও সারেনি। তিনি বলেছেন, ‘এই আঘাত কেমন সবাই বোঝে এবং এটা আমাদের কষ্ট দিয়ে যাবে। স্বপ্ন পূরণের একেবারে কাছে ছিলাম আমরা। কিন্তু এটাই ফুটবল। সেরা দল সবসময় জেতে না। আমাদের এটা মেনে নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে। অন্য সব আর্জেন্টাইনের মতো যারা এটা চেয়েছিলাম, তাদের সবাই কেঁদেছিল এবং আমিও কেঁদেছি। ব্যথাটা এখনও আছে।’আরেকটি বিশ্বকাপ চলে এসেছে। এবারও প্রত্যাশার কমতি নেই। এটা স্বাভাবিক মেসির কাছে, ‘আমরা আমাদের সেরাটা দিতে চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু আর্জেন্টিনার জন্য এখনও কিছু জিততে পারিনি। যদিও ১৯৮৬ সাল থেকে আমরা বিশ্বকাপ জিততে পারিনি, তারপরও প্রত্যাশা থাকতেই পারে। প্রত্যেক আর্জেন্টাইনের মতো আমিও আমার দেশের জন্য বিশ্বকাপ জয়ের চরম আনন্দ পেতে চাই। দলের প্রত্যেক ফুটবলার ২০১৪ সালে তার সেরাটা দিয়েছিল। কিন্তু আমরা পারিনি।’চার বছর আগে ভাঙা স্বপ্ন এবার পূরণ করতে চান মেসি। এবারই শেষ সুযোগ মনে করছেন তিনি, ‘আমার স্বপ্ন এখনও একই- ফাইনালে ওঠা এবং কাপ হাতে নেওয়া। এতদূরে যাওয়া ও বিশ্বকাপে ফাইনাল খেলা সত্যিই কঠিন। এই অভিজ্ঞতা ২০১৪ সালে আমাদের হয়েছে। এবারও একই কাজ করতে চাই আমরা এবং গতবারের ফলাফল পাল্টাতে চাই। এবার আমরা কাপ জিততে চাই। শিরোপা জিততে আমাদের প্রজন্মের ফুটবলারদের জন্য সম্ভবত এটাই শেষ সুযোগ।’এবারও শিরোপা স্বপ্নে বিভোর আর্জেন্টাইনরা। মেসিই তাদের ভরসা। দেশের মানুষের এই প্রত্যাশার ভারকে অসহনীয় মানতে চান না বার্সেলোনা ফরোয়ার্ড, ‘না, তেমনটা নয়। একজন আর্জেন্টাইন ও ফুটবল ভক্ত হিসেবে সবসময় চাওয়া থাকে আমরা এই সেরা পুরস্কার পাই। এতে কোনও সমস্যা দেখি না। এমনকি আমিও এভাবেই ভাবি। আমরা সবাই জানি বিশ্বকাপ জেতা কতটা চ্যালেঞ্জিং, কিন্তু আমরা সবাই চাই এটা। আর্জেন্টাইনরাও চায়। তাই এটা স্বাভাবিক।’টানা তিনটি বড় মঞ্চের ফাইনালে খেলেছিল আর্জেন্টিনা। কিন্তু শিরোপা না জেতায় এই সাফল্য সবার কাছে অর্থহীন। কারণ দেশের ফুটবল দলকে আর্জেন্টাইনরা সবসময় শীর্ষে দেখতে চায় মনে করেন মেসি। মিডিয়ায় নিজের সমালোচনাকে তাই স্বাভাবিক চোখে দেখেন ৩০ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড, ‘অবশ্যই এটা (সমালোচনা) কষ্ট দেয়। কিন্তু আপনাকে বুঝতে হবে তারাও (মিডিয়া) আমাদের মতো অসহনীয় কষ্ট থেকে এমনটা করে। আর্জেন্টিনা ফুটবল পাগল দেশ। মিডিয়া যেভাবে প্রতিক্রিয়া দেখায় সেটা তাদের জন্য স্বাভাবিক। আমাদের তিনবার ফাইনালে খেলা অর্থহীন। এটাই আর্জেন্টিনা, এখানে রানার্সআপদের কোনও জায়গা নেই।’গ্রুপে আইসল্যান্ড, ক্রোয়েশিয়া ও নাইজেরিয়ার সঙ্গে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা। তাই যে কোনও পরিস্থিতির জন্য দলকে প্রস্তুত থাকতে বললেন অধিনায়ক, ‘সেরা টুর্নামেন্টে সবগুলো দলই সেরা, সেখানে আপনাকেও সেরা পারফরম্যান্স করতে হবে। প্রত্যেক প্রতিপক্ষ কঠিন পরিস্থিতিতে ফেলতে প্রস্তুত, কিন্তু এর জন্য আমাদের তৈরি থাকতে হবে। এটা বিশ্বকাপ। কোনও কিছুর নিশ্চয়তা নেই। এখানে দেশকে প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ পায় কেবল সেরারা। সব ম্যাচ কঠিন হবে। কিন্তু আমরা পারফর্ম করতে প্রস্তুত।’এই টুর্নামেন্টে বেশ কয়েকটি দলকে ফেভারিট মানছেন মেসি, ‘সব বড় ফুটবল দলগুলো ফেভারিট হিসেবে শুরু করবে। বর্তমান চ্যাম্পিয়ন জার্মানি আরও একবার এই সাফল্য পেতে সেরাটা দেবে। স্পেনের ভালো একটা দল আছে যারা অনেক দূর যেতে পারে। ব্রাজিল ও পর্তুগাল বাছাইয়ে ভালো করেছিল, ফ্রান্সও।’

Admin

0 Comments

Please login to start comments